Tech Knowledge

ভিপিএন কি? কেন ভিপিএন ব্যবহার করবেন ?

0
ভিপিএন কি

বর্তমানে আমরা তথ্য-প্রযুক্তির যুগে বসবাস করছি আর আমাদের দৈনন্দিন কাজ কর্মে আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি। আমরা হয়ত অনেকেই ভিপিএন শব্দটার সাথে পরিচিত আবার অনকেই এটি ব্যবহার করেছি বুঝে না বুঝে, কিন্তু হয়তো আমরা এর ব্যবহারের সঠিক কারণগুলো তেমন ভাবে জানি। আজ এই পোস্টে আপনাদের আমি যতটুকু জানি তা জানানোর চেষ্টা করব। ভিপিএন কি? কেন আমাদের ভিপিন ব্যবহার করা উচিত? এবং কিছু ফ্রি ভিপিএন সার্ভিস দেয় এমনসব কোম্পানির নাম এবং সুবিধা অসুবিধা।

ভিপিএন(VPN) কিঃ ভিপিএন এর সম্পূর্ণ নাম হলো- ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (Virtual Private Network)। ভিপিএন হচ্ছে এমনি একটি সিকিউর ইন্টারনেট কানেকশন যেটি ব্যবহার করার ফলে ব্যবহারকারীরর কম্পিউটারে এমন একটি সার্ভারে টানেল তৈরী হয়। অর্থ্যাৎ আপনি যখন ভিপিএন ব্যবহার করেন তখন আপনার ব্রাউজিং হিস্টোরি বা যেসব করছেন এমন ব্যবস্থায়য় আদান প্রদাব হয় যা শুধু ব্যবহারকারী দেখতে পাই অন্য কেউ না। কি বুঝতে একটু সমস্যা হচ্ছে? সমস্যা কোন সমস্যা না নিচের পয়েন্টগুলো পড়ে পরিষ্কার ধারণা নিয়ে নিন।

কেন ভিপিএন ব্যবহার করবেনঃ

১.ওয়েব সাইট আনব্লক করতেঃ  আমরা দৈনন্দিন জীবনে আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করি ও বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্রাউজিং করে থাকি। আর এসব ওয়েবসাইট এর মধ্যে অনেক ওয়েব আমাদের দেশের জন্য না বা কোন এক সাইট আপনাকে ব্লক করে রাখছে অর্থ্যাৎ আপনার আইপি এড্রেস ব্লক করছে তখন ভিপিএন এর মাধ্যমে ঐ সাইট ইচ্ছা করলেই ব্যবহার করতে পারবেন।

২. আইএসপিঃ ইন্টার সার্ভিস প্রোভাইডর ( ISP= Internet Service Provider) আমরা অনেক ভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি কেউ ওয়াইফাই কেউ বা ব্রডব্যান্ড আবার কেউ সীম অপারেটর এর মাধ্যমে।অর্থ্যাৎ যাদের মাধ্যমে আমরা ইন্টারনেটের সেবা গ্রহণ করি তারাই হলো ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার। আর ইচ্ছা করলে এরা আপনার ব্রাউজিং হিস্টোরি দেখতে পারে মানপ আপনি কোন ওয়েবসাইটে ঢুকছেন কি করছেন এসব।আর এইখানে আপনার সিকিউরিটির জন্য আপনি ভিপিএন ইউজ করলে তারা আপনার গতিবিধি কিছুই দেখতে পাবে না শুধু ভিপিএন কানেক্ট আছেন এটায় জানতে পারবে।

৩.হ্যাকিং প্রতিরোধেঃ আপনি যখন কোন ভিপিএন কানেক্ট হয়ে থাকবেন তখন আপনার লোকেশন পরিবর্তন হয়ে যাবে। ধরুন আপনি বাংলাদেশে বসে আপনার ফোনে বা কম্পিউটার যেকোনো একটি ভিপিএন দিয়ে কানাডা দেশ সিলেক্ট করে কানেক্ট করলেন তখন আপনার ডিভাইস টার লোকেশন পরিবর্তন হয়ে যাবে। যখন আপনি কোন ওয়েবসাইটে ঢুকবেন তখন আপনার আইপি এড্রেস টা ভিপিএনের সার্ভারের হবে যার ফলে হ্যাকার আপনার তথ্য সংগ্রহে বাধা বিঘ্নে পড়বে।

৪.পাবলিক ওয়াফাই ব্যবহারে ভিপিএনঃ পাবলিক ওয়াফাই বলতে যেসব লোকেশন আমরা কোন পাসওয়ার্ড দেওয়া ছাড়া ওয়াইফাই ব্যবহার করে থাকি। আমরা যখন এটি ব্যবহার করি তখন আপনার ডিভাইসে হটস্পটে ডাটা আদান-প্রদানে কোন বাধাঁ দান করে না ফলে আপনার ডাটা বা তথ্য চুরি হওয়ার ভয় থাকে। এই সমস্যাটি কিছুটা এড়াতে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।

৫. ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহারে ভিপিএনঃ অনেক ধরণের ভিপিএন আছে যাদের মাধ্যমে আমাদের সীম কোম্পানির ফ্রি Access করা যায় এমন সাইট গুলো কে কেন্দ্র করে ফ্রি নেট চালানো যায়। আমরা অনেকেই এভাবে ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহার করছি। এছাড়া আরেও বিভিন্ন কারণে ভিপিএন ব্যবহার করা হয়ে থাকে যা আপনি ব্যবহার করতে গেলেই বুঝে যাবেন।

ভিপিএন এর অসুবিধাঃ ভিপিএন কানেক্ট করার ফলে আমাদের নেট চালোনর গতি টা একটু কমতে পারে আর কম্পিউটারের জন্য ফ্রিভিপিএন ভালো সার্ভিস পাওয়া যায় কম। কিন্তু মোবাইলের ক্ষেত্রে অনেক ভালো ভালো ফ্রি ভিপিএন আছো।

কম্পিউটারের জন্য কিছু ফ্রি ভিপিএনের নামঃ Hotspot Sheild, Nord Vpn, CyberGost ইত্যাদি।।

নোটঃ আশা করি আর্টিকেল আপনাদের ভালো লাগছে।যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে তাদের জানার সুযোগ করে দিবেন। পরবর্তিতে ফ্রিভিপিএন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। আর হ্যাঁ অবশ্যই কমেন্ট করে মন্তব্য টা দিবেন।

আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোন কে ভালো রাখার জন্য ১০ টি করণীয় টিপস ।

Facebook Comments

monsterid
নিজের সম্পর্কে তেমন কিছু বলার নাই । আমি প্রতিনিয়ত নতুন কিছু শিখার বা জানার চেষ্টা করি এবং নিজের জানা ও শিখা বিষয় গুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করে থাকি এই সাইট টির মাধ্যমে । "Learn And Share Your Knowledge"

আপনার অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ভালো রাখার জন্য ১০ টি করণীয় টিপস ।

Previous article

হ্যাকিং প্রতিরোধে তৈরি করুন স্মার্ট পাসওয়ার্ড নিজেকে রাখুন সুরিক্ষত ।

Next article

You may also like

Comments

Leave a reply